আলোকিত রাঙামাটি
  • বৃহস্পতিবার   ০১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১৬ ১৪২৭

  • || ১২ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে নতুন করে আরো ৩ জন করোনায় আক্রান্ত, মোট আক্রান্ত- ৯০৩, মোট সুস্থ- ৮৫০, মোট মৃত্যু- ১৩ জন। সারাদেশে ধর্ষণ-নির্যাতন বন্ধ এবং অপরাধীদের শাস্তির দাবীতে রাঙামাটিতে স্বেচ্ছাসেবীদের মানববন্ধন
৩৩১

অনলাইনে ক্লাস, শিক্ষার্থী- শিক্ষকের ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলার উপায়

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ৭ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ছবি: অনলাইনে ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা


সারাবিশ্বে প্রায় সব জায়গাতে এখনো অনলাইনেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চলছে। করোনাভাইরাসের কারণে বদলে গেছে জীবনযাপনের ধরণও। সেই সঙ্গে স্কুল, কলেজ, ভার্সিটি যাওয়ার সুযোগও হারিয়েছেন ছাত্র-ছাত্রীরা। তাই বলে থেমে নেই শিক্ষাদান। অনলাইনেই শিক্ষার্থীদের পাঠদান দিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষকরা। 

এখন আর সুযোগ নেই সামনাসামনি ক্লাসের। তবে এর মধ্যেই ভালো সম্পর্ক থাকতে হবে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীর মধ্যে। এতে করে ভার্চুয়াল জগতেও সংকোচ কাটিয়ে পাঠডান এবং গ্রহণ সহজ হবে। শিক্ষার্থী- শিক্ষকের মধ্যে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলার কিছু টিপস রইলো। আপনার কাজে লেগে যেতেই পারে। চলুন তবে জেনে নিন কীভাবে শিক্ষার্থী আর শিক্ষকের মধ্যে ভার্চুয়াল জগতে সম্পর্ক ভালো হতে পারে- 

এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের করণীয়- 

শিক্ষকের উপর আস্থা রাখতে হবে। একজন শিক্ষার্থীর উচিত তার শিক্ষককে সঠিকভাবে গ্রহণ করা এবং বিশ্বাস করা। আর শিক্ষকের কথা মতো পড়া তৈরি করা। শোনা।

শিক্ষককে শ্রদ্ধা করতে হবে। ভার্চুয়াল ক্লাসে সামনাসামনি ক্লাস করার সুযোগ হয় না। তাই শিক্ষকের সামনে বা পেছনে তাকে নিয়ে উল্টা পাল্টা মন্তব্য করা যাবে না। সবসময় শিক্ষককে শ্রদ্ধা ও সম্মান করতে হবে।   

> শিক্ষকের সাহায্যকারী হওয়া উচিত। কোনো শিক্ষক স্কুল বা কলেজে নতুন হলে অনেক কিছুই বুঝে উঠতে পারেন না। ফলে তিনি তার শিক্ষার্থীর সমস্ত বিষয় এবং অভ্যাস সম্পর্কে সচেতন হতে পারেন না। এছাড়া তার নিজস্ব কিছু সমস্যাও থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে শিক্ষককে নিয়ে মজা না করে তার পরিবর্তে শিক্ষার্থীদের উচিত শিক্ষককে সাহায্য করা। শিক্ষার্থীরা যদি নতুন শিক্ষককে স্কুল বা কলেজের পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য হতে সাহায্য না করে তবে শিক্ষার্থী-শিক্ষকের সম্পর্কের গভীরতা পাবে না।  

এক্ষেত্রে শুধু যে শিক্ষার্থীদের দায়িত্বই শেষ নয়। শিক্ষকদেরও কিছু করনীয় আছে-   

যোগাযোগের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। খুব গম্ভীর, মেজাজী শিক্ষক যদি হয় তাহলে তা কখনোই কোনো শিক্ষার্থীদের কাছে শিক্ষক সম্পর্কে ভালো প্রভাব পড়বে না। এমন পরিবেশ তৈরি করতে হবে যেখানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে যোগাযোগ ভালো হয়। কোনো ছাত্র বা ছাত্রী যাতে কিছু বলতে ভয় না পায়, তারা যেন সবকিছু শেয়ার করতে পারে।   

শিক্ষার্থীদের সাহায্য করুন তাদের সংশয়গুলো সামনে আনতে। শিক্ষকদের উচিত বিনা দ্বিধায় তার শিক্ষার্থীদের সব সংশয়গুলো জিজ্ঞাসা করা এবং তা সমাধানের চেষ্টা করা। শিক্ষকদের উচিত হবে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ ব্যবহার করা। 

> প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীকে আলাদা আলাদা ব্যক্তি হিসেবে দেখা উচিত। প্রতিটা মানুষ একরকম হয়। প্রত্যেকেরই নিজস্ব ব্যক্তিত্ব আছে বা নিজস্বভাবে আলাদা। ঠিক সেরকমই, শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য। প্রতিটি শিক্ষার্থীর একই আচরণ নাও হতে পারে। প্রতিটি শিক্ষার্থীর লক্ষ্য অর্জনে সাহায্য করতে শিক্ষকদের কাছে আলাদা কৌশল থাকা দরকার।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি