ব্রেকিং:
স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ১লা জুন থেকে রাঙামাটির ৬ টি উপজেলায় লঞ্চ চলাচল শুরু
  • রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস অনুষ্ঠিত বাঘাইছড়িতে ১৫ প্রতিবন্ধী পেলো প্রধানমন্ত্রীর উপহার বাঘাইছড়ি প্রেস-ক্লাবের স্থায়ী ভবন নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন লংগদুতে ১০টি মাদ্রাসার ৪শত ছাত্রদের মাঝে `প্রধানমন্ত্রীর উপহার` শিশু খাদ্য বিতরণ ‘হাসপাতাল গুলোতে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সরঞ্জাম নিশ্চিত করা হবে’ কাঁচামাল সংকটে একসপ্তাহ ধরে কেপিএমের উৎপাদন বন্ধ
২৭৪

আকাশপথে সেনা সদস্যরা পাচ্ছেন জরুরি মেডিকেল সরঞ্জামাদি

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ৫ এপ্রিল ২০২০  

ছবি: সংগৃহীত


বিশ্বজুড়ে প্রতি মিনিটে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন ৫৫ জন এবং মারা যাচ্ছেন চারজন। গোটা বিশ্ব এখন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মোকাবিলা করছে। বাংলাদেশে এর সংক্রমণ ও মৃত্যু অন্যান্য দেশের তুলনায় খুব একটা হয়নি বললেই চলে। তবে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রায় ১২ দিন আগে থেকেই সরকারের নির্দেশে জেলা শহরগুলোতে সামাজিক দূরত্ব, হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুবিধার্থে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

করোনার প্রভাব ঠেকাতে সবাইকে ঘরবন্দী থাকতে উৎসাহিত করতে সেই থেকেই দেশের প্রতিটি জেলা ও বিভাগীয় শহরগুলো চষে বেড়াচ্ছেন সেনা সদস্যরা। তারা নিজেরা সড়কে ও যানবাহনে জীবাণুনাশক ছিটিয়ে মানুষকে নিরাপদ করছেন। বাজারে বাজারে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে কড়া নজরদারিও করছেন। এতো সব কর্মযজ্ঞ সেনা সদস্যরা করছেন নিজ নিজ জেলার ক্যান্টনমেন্টে অবস্থান করেই।

 

 

আর দেশজুড়ে সেনাবাহিনীর সামগ্রিক কর্মকাণ্ডের বিষয়টি মনিটরিং করছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। জেলা প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে কীভাবে কার্যক্রম জোরদার করতে হবে তিনি এ বিষয়েও দায়িত্বশীলদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন। আবার প্রতিদিনের কার্যকলাপের সারসংক্ষেপ পৌঁছে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

জানা গেছে, দেশের ৬২টি জেলায় সেনাবাহিনীর ৫৪৬টি দল টহলের পাশাপাশি চিকিৎসা সেবা, জনসমাগমের পয়েন্টগুলোতে মাইকিংসহ জনসচেতনতামূলক নানা কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে। জেলা বা বিভাগীয় শহরে কোনো ক্যাম্প স্থাপন না করেই প্রতিটি এলাকার ক্যান্টনমেন্ট থেকেই দিন রাত বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে কাজ করছেন সেনা সদস্যরা।

 

 

এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সারাদেশে গণপরিবহন বন্ধ রেখেছে সরকার। ফলে সড়কে সড়কে শুধুমাত্র সেনাবাহিনী ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহলের গাড়ি রয়েছে। এমন অবস্থায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে দায়িত্ব পালন করা সেনা সদস্যদের কাছে জরুরি মেডিকেল সরঞ্জামাদি পৌঁছে দিতে নিজেদের যান ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নেয় সেনাবাহিনী।  

সীমিত যান চলাচলের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর হাইকমান্ড নিজেদের আর্মি এভিয়েশন গ্রুপকে পুরোমাত্রায় কাজে লাগাচ্ছে। সড়কপথ ব্যবহার না করে প্রতিটি জেলার সেনাবাহিনীর দলের জন্য প্রয়োজনীয় মেডিকেল সরঞ্জামাদি পৌঁছে দিতে ব্যবহার করা হচ্ছে এভিয়েশন গ্রুপের একাধিক হেলিকপ্টার ও কাসা বিমান।

এক্ষেত্রে নিজ নিজ এলাকায় অবস্থানরত সেনা সদস্যদের হাতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক মাস্ক, হ্যান্ড-স্যানিটাইজারসহ বিভিন্ন মেডিকেল সরঞ্জামাদি পৌঁছে দিচ্ছে আর্মি এভিয়েশন গ্রুপ। মাঠ পর্যায়ে জীবনবাজি রাখা সেনা সদস্যরা নিজেদের সুরক্ষায় এসব মাস্ক, হ্যান্ড-স্যানিটাইজার ব্যবহারের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের হাতেও তুলে দিচ্ছেন। আবার প্রতিটি জেলাতেই মেডিকেল সহায়তার বিষয়টিও মাথায় রাখা হয়েছে। এরইমধ্যেই সাভার, কুমিল্লা, যশোরসহ বিভিন্ন এলাকায় সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দেয়ার পাশাপাশি ওষুধও বিতরণ করছেন সেনা সদস্যরা। 

 

 

সাধারণত শান্তিকালীন সময়ে আর্মি এভিয়েশন সেনা বৈমানিকদের প্রশিক্ষণ, বিভিন্ন অনুশীলন ও মহড়ায় অংশগ্রহণ, জরুরি চিকিৎসার জন্য রোগী স্থানান্তর, সেনাবাহিনীর প্রয়োজনীয় মালামাল পরিবহন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সন্ত্রাস দমন ও প্রশাসনিক কর্মকাণ্ডে জরুরি প্রয়োজনে সহযোগিতা প্রদান করে থাকে। আর যুদ্ধকালীন সময়ে আকাশ পর্যবেক্ষক হিসেবে গোলা নিয়ন্ত্রণ, জরুরি রিইনফোর্সমেন্ট সহায়তা, কমান্ডো অপারেশনে সহায়তা, জরুরি রশদ সরবরাহ ও যুদ্ধক্ষেত্রে রোগী স্থানান্তরসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধকালীন দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা রয়েছে ১৯৭৮ সাল থেকে তেজগাঁও পুরাতন বিমানবন্দর এলাকা থেকে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসা আর্মি এভিয়েশন গ্রুপ।

আর্মি এভিয়েশন গ্রুপের বিমান বহরে সেসনা-১৫২ এ্যারোব্যাট, সেসনা গ্রান্ড ক্যারাভান সিই-২০৮বি বিমান, বেল-২০৬ এল ৪ হেলিকপ্টার, ইউরোকপ্টার ডফিন এএস ৩৬৫ এন৩+, এমআই ১৭১ এস এইচ হেলিকপ্টার এবং কাসা সি-২৯৫ ডব্লিউ বিমান ও ৪ টি ডায়মন্ড ডিএ৪০এনজি প্রশিক্ষণ বিমান রয়েছে।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর