• বৃহস্পতিবার   ২৮ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৭

  • || ০৪ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
মুষলধারে বৃষ্টি, কাপ্তাইয়ে পাহাড় ধ্বসের আশংকা করোনা প্রতিরোধে রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্টের ৯০ লাখ টাকার ‘নগদ অর্থ সহায়তা’ প্রদান করোনা রোগী সনাক্ত হওয়ায় কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকা লকডাউন লংগদুতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফার্মাসিস্ট করোনা পজেটিভ কাউখালীতে করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের খোঁজ নিলেন ইউএনও
২১৪

করোনা চিকিৎসায় দেশে ব্লাড-প্লাজমা থেরাপি শুরু

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ৫ মে ২০২০  

ছবি: প্রতীকী


করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা হিসেবে দেশে শুরু হয়েছে ‘পরোক্ষ এন্টিবডি থেরাপি’ বা ‘প্লাজমা থেরাপি’। বাংলাদেশে এ ধারণাটি প্রথম সামনে নিয়ে আসেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া। গত ১ এপ্রিল তার এই প্লাজমা থেরাপি নিয়ে দৈনিক ইত্তেফাক অনলাইনে ‘চবি শিক্ষকের আইডিয়া বাঁচাতে পারে ‘কোভিড-১৯’ আক্রান্ত রোগীর প্রাণ' শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

দেশে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. জোয়ারদার রাকিন মনজুর প্রথমবারের মতো প্লাজমা ডোনেট করেন। গত সোমবার ব্লাড ট্রান্সফিউশন তার শরীর থেকে ৮০০ এমএল প্লাজমা সংগ্রহ করেন। এ প্লাজমা বাঁচাতে পারে অন্তত দুজন করোনা রোগীর প্রাণ। এদিকে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার ৩ যুবকও প্লাজমা দিতে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত সংবাদে ওই শিক্ষকের বরাত দিয়ে বলা হয়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত থেকে নিরাময় হয়ে উঠা ব্যক্তির ব্লাড-প্লাজমা বা ব্লাড-সিরাম নিয়ে (ভাইরাস ও অন্যান্য ইনফেক্সাস এজেন্ট স্কিনিংয়ের পর) আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করালে আক্রান্ত ব্যক্তি খুব তাড়াতাড়ি নিরাময় হয়ে উঠতে পারে। কারণ পূর্বে নিরাময় হয়ে উঠা ব্যক্তির ব্লাড প্লাজমা অথবা সিরামে এন্টি কোভিড-১৯ এন্টিবডি উৎপন্ন হয়ে আছে, যা আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরের প্রবেশ করালে আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত নিরাময়ে দারুণ ভূমিকা রাখবে।

এ বিষয়ে ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া দৈনিক ইত্তেফাককে বলেন, প্লাজমা ধারণাটি সামনে আনার পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান প্রফেসর ডা. মো. শহীদুল্লাহ ও সদস্য সচিব প্রফেসর ডা. মীরজাদী সেব্রীনা ফ্লোরা বরাবর একটি ইমেল করেছি ব্লাড- প্লাজমা ব্যবহারের উদ্যোগ নেওয়ার জন্য। একমাস পর ব্লাড-প্লাজমা ব্যবহারের উদ্যোগ গ্রহণ দেখলাম। আরও আগে শুরু করতে পারলে হয়তো অনেক রোগীকে বাঁচানো সম্ভব হতো।

তিনি আরও বলেন, প্রথম থেকেই আমার ধারণা ছিল যে, ভ্যাকসিন ও ওষুধ আবিষ্কার সময় সাপেক্ষ, তাই রোগীর জীবন বাঁচানোর শেষ চেষ্টা হিসেবে ব্লাড-প্লাজমার প্রয়োগ করা যেতে পারে এবং এর ব্যবহারের ফলে সফলতাও পাচ্ছে বিভিন্ন দেশ।

উল্লেখ্য, ব্লাড প্লাজমা বা পরোক্ষ এন্টিবডি থেরাপি হচ্ছে, একজন ব্যক্তির শরীরে উৎপন্ন এন্টিবডি অন্য ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করানো। করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) এ আক্রান্ত হয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠা ব্যক্তির ব্লাড-প্লাজমা আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে প্রয়োগ করলে আক্রান্ত ব্যক্তি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠেন।

সূত্রঃ ইত্তেফাক

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর