আলোকিত রাঙামাটি
ব্রেকিং:
বাঙ্গালহালিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনাঃ কাপ্তাইয়ের শিক্ষার্থী নিহত, আহত ২ রাঙামাটিতে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘর পাচ্ছেন আরো ৬২৩ গৃহহীন পরিবার
  • শনিবার   ১৯ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪২৮

  • || ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে করোনায় নতুন আক্রান্ত আরো ৮ জন। মোট আক্রান্ত হয়েছেন- ১৬০৩, মোট সুস্থ- ১৫১৯, মোট মৃত্যু ১৯ জন।

কাপ্তাই হ্রদে ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে শুরু হল বৈসাবি

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ১২ এপ্রিল ২০২১  

ছবি:- আলোকিত রাঙ্গামাটি 

ইমতিয়াজ ইমন (সদর) প্রতিনিধিঃ- বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ সংক্রমণ আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর তিন দিনব্যাপী বৈসাবি উৎসব শুরু হয়েছে। রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে ফুল ভাসানোর মধ্য দিয়ে আজ থেকে রাঙামাটিতে শুরু হয়েছে চাকমাদের বিজু, মারমাদের সাংগ্রাই ও ত্রিপুরাদের বৈসুক উৎসব।

সোমবার (১২ এপ্রিল) সকালে বড় কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই ভগবানের আর্শিবাদ প্রার্থনা করে কাপ্তাই হ্রদে গঙ্গা দেবীর উদ্দেশে পানিতে ফুল ভাসিয়ে উৎসবের সূচনা করেন। আজ সকালে রাঙামাটি রাজবাড়ী ঘাটে বৈসাসী উদযাপন কমিটি ও হিলর ভালেদীর উদ্যোগে গ্রামের তরুন তরুনীরা ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে তিন দিন উৎসবের সূচনা করা হয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে কোন প্রকার উৎসব না হলেও প্রতিটি গ্রামের লোকজন নিজ নিজ গ্রামের নদীতে গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে ফুল ভাসনোর মধ্যে দিয়ে উৎসবের প্রথম দিন অতিবাহিত করেন। 

সরকারের নির্দেশনা ও পাহাড়ের রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দের অনুরোধে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে সকলে এই বিজু পালন করছে পাহাড়ী গ্রামের মানুষ। প্রতিটি বাড়ীতে বাড়ীতে বৈসাবী উৎসব ঘরোয়া পরিবেশে পালন করছে বলে জানিয়েছেন পাহাড়ের অনেকেই।

পাহাড়ের উৎসবের এই দিনটি ঘিরে পাহাড়ের আনন্দ উৎসবে মেতে থাকে পাহাড়ের মানুষ। কিন্তু গত বছর থেকে শুরু হওয়া বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে রাঙামাটিতে উৎসাহ উদ্দীপনা না থাকলেও বৈসাবী উৎসব পালিত হচ্ছে সীমিত পরিসরে। সকলেই প্রার্থনা করেন গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে ফুল ভাসনোর মধ্যে দিয়ে পুরাতন বছরের সমস্ত দুঃখ দুর করে করোনা মহামারী থেকে দেশবাসীকে মুক্ত করতে ভগবানের কাছে প্রার্থনা করেন। 

তার পরও করোনার কারণে এবার রাঙামাটিসহ তিন পার্বত্য জেলায় কোথাও কোনো উৎসবের উচ্ছ্বাস, আমেজ চোখে পড়েনি। উপজাতীয় জনগোষ্ঠী নিজ নিজ গ্রামে উপজাতীয় জনগোষ্ঠী ফুল ভাসনোর মধ্যে দিয়ে উৎসবের সূচনা করেন। আগামীকাল মঙ্গলবার মূলবিজু পালিত হয়। বুধবার গোজ্যেপোজ্যে দিন পালিত হবে যার যার ঘরে।

হিলর ভালেদী নির্বাহী পরিচালক সুপ্রিয় চাকমা শুভ জানান, বিশ্বে করোনা মহামারীর কারণে গত বছরের ন্যায় এবছরও আমরা সীমিত পরিসরে বৈসাবী উদযাপন করছি। উৎসবের প্রথম দিনে আজ গ্রামের তরুন তরুনীরা গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে উৎসবের প্রথম দিন অতিবাহিত করছি।

তিনি বলেন, আগামী বছর যাতে আমরা করোনা মুক্ত একটি বিশ্ব পাওয়ার মাধ্যমে বৈসাবি উৎসব উৎসবের মতো পালন করতে পারি এ কামনা করছি। 

বিজু, বৈসু, সাংগ্রাইং-২০২১ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ইন্টু মনি চাকমা জানান, বৈসাবীর উৎসবকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর এই তিন দিনে আনন্দ উৎসবে মেতে থাকতো। করোনা মহামারী পাহাড়ের নৃ-গোষ্ঠীর মানুষের আনন্দ ম্লান হয়ে গেছে। সরকারের নির্দেশনা ও নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে সামাজিক দুরত্ব মেনে পালন করছে বৈসাবী উৎসব। আজ সকালে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার মাধ্যমে ফুল বিজু পালন করেছি। আশা করছি আগামীবছর করোনা মুক্ত একটি বিশ্ব পাওয়ার মাধ্যমে বৈসাবী উৎসব আনন্দঘন ভাবে পালন করতে পারবো।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি