ব্রেকিং:
খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ’র চাঁদাবাজ ও সশস্ত্র সন্ত্রাসী একশন বাবু আটক খাগড়াছড়িতে নিরাপত্তা বাহিনী ও ইউপিডিএফ’র গুলিবিনিময়; গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এক ইউপিডিএফ সন্ত্রাসী আটক, সর্টগান ও ২১ রাউন্ড গুলি উদ্ধার
  • সোমবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১২ ১৪২৬

  • || ২৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
‘বর্তমান সরকার উন্নয়ন ও শিক্ষা বান্ধব’ বান্দরবানে দুর্বৃত্তের গুলিতে আওয়ামী লীগ নেতা নিহত, আতঙ্কিত হয়ে একজনের মৃত্যু, গুলিবিদ্ধ আরো ৫ খাগড়াছড়িতে অটোরিকশা উল্টে নিহত ১ পাহাড়ে যোগাযোগের নবদিগন্ত নানিয়ারচরের ‘চেঙ্গী সেতু’ বারি পেঁয়াজ-৫ চাষের মাধ্যমে পাহাড়ে অর্থনৈতিক অর্জন সম্ভব রাঙামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন মরণব্যাধি ক্যানসারের কাছে হেরে গেলেন সাজেকের সাধন চাকমা
৯২৯

জুরাছড়িতে পালিত হলো বিশ্ব এন্টিবায়োটিক সচেতন সপ্তাহ

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯  


রাঙামাটি জেলার জুরাছড়িতে বিশ্ব এন্টিবায়োটিক সচেতন সপ্তাহ ২০১৯ (১৮-২৪ নভেম্বর) উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ, জুরাছড়ি’র বাস্তবায়নে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় জুরাছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হতে একটি র‌্যালী বের হয়ে উপজেলার গুরূত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে।

র‌্যালী শেষে জুরাছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় যার স্লোগান ছিল “এন্টিবায়োটিকের সফলতার, আপনি-আমি অংশীদার”।

 

 

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, ডাক্তার বিপাশ খীসা, প্রেজেন্টেশন করেন ট্রিটন চাকমা। বিশেষ অথিতি হিসাবে ছিলেন, বিদ্যুৎ কুমার চৌধুরী (কৃষি বিভাগের সহকারী)।  আলোচনা সভায় জুরাছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর কর্মকর্তা-কর্মচারী সহ বিভিন্ন পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

এই সচেতন অনুষ্ঠানের সভাপতি ডাক্তার বিপাশ খীসা তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমাদের দেশে রোগীরা ওষুধের দোকান থেকে মুখস্থ এন্টিবায়োটিক ক্রয় করে অথবা ওষুধ বিক্রেতাকে বলে নিয়ম বহির্ভূতভাবে এন্টিবায়োটিক সেবন করে থাকেন। যা কোন ডাক্তার প্রেসক্রাইভ করেনি বা ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া হয়নি।

মুলত রোগীরা খুব দ্রুত রোগ থেকে মুক্তি চান বলে হরহামেশা ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া এন্টিবায়োটিক সেবন করেন। ফলে এন্টিবায়োটিকের যথার্থ প্রয়োগ না হওয়ায় জীবাণুগুলো ধীরে ধীরে রেজিসট্যান্স হয়ে পড়ে। (এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার যথার্থ না হলে এমন একটা সময় আসবে যখন ব্যাকটেরিয়াকে মারা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। এ অবস্থাকে ব্যাকটেরিয়াল রেজিসট্যান্স বা এন্টিবায়োটিক রেজিসট্যান্স বলা হয়। তখন আর এন্টিবায়োটিক কাজ করে না।)

ডাক্তার বিপাশ খীসা আরো বলেন, চিকিৎসার ক্ষেত্রে এন্টিবায়োটিক রেজিসট্যান্স বা অকার্যকারিতা একটি বড় হুমকি। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে এন্টিবায়োটিক ওষুধ কিনতে হলে ডাক্তারের পরামর্শপত্র দেখাতে হয়। ডাক্তার ছাড়া অন্য কারো এন্টিবায়োটিক ওষুধ দেয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। তিনি জনগণকে এন্টিবায়োটিক ব্যবহারে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান।

 

 

কর্মসূচীটির আয়োজনে ছিলেন, এন্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্স কন্টেইনমেন্ট, ভাইরাল হেপাটাইটিস ও ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচী, রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগ, সিডিসি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, মহাখালী, ঢাকা।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
রাঙ্গামাটি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর