আলোকিত রাঙামাটি
  • মঙ্গলবার   ২০ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৫ ১৪২৭

  • || ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে মোট করোনায় আক্রান্ত- ৯২৩, মোট সুস্থ- ৮৮৫, মোট মৃত্যু- ১৪ জন।
১৭২২

টাকা উদ্ধার করতে বোনকে জিম্মায় নিলো বিকাশ কর্মকর্তারা

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ১ অক্টোবর ২০২০  


নিজস্ব প্রতিবেদকঃ- প্রতারক ভাইয়ের কাছ থেকে টাকা উদ্ধার করতে বোনকে জিম্মায় নিলো রাঙামাটির বিকাশ ডিস্টিবিউটারের কর্মকর্তারা। পরবর্তীতে ১০০ টাকার স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে প্রতারক ভাইয়ের ভাই ও বোনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। গত ২৯ সেপ্টেম্বর বিকাশ লিমিটেড এর ডিস্টিবিউটর মেসার্স আরিফ এন্টারপ্রাইজ, রিজার্ভ বাজার শাখায় এই ঘটনা ঘটে। 

গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাঙামাটি কোতয়ালী থানায় রেশমি আক্তার অভিযোগ করে বলেন, আমার ভাই মোঃ দিদারের সাথে বিকাশ ডিস্টিবিউটর মেসার্স আরিফ এন্টারপ্রাইজের সাথে লেনদেন আছে। এই মর্মে আমার ভাই তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনা বর্ণনা করে প্রথমে আবার ছোট ভাই আনোয়ার হোসেনকে জোর পুর্বক ধরে নিয়ে যায় ২৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার সময়। পরবর্তীতে তারা ভাইকে নিয়ে আমার বাসা এবং আমার ভাই দিদারের দোকান তল্লাশি চালায়। এ সময় ক্যাশে থাকা ৪০ হাজার ৫৪০ টাকা এবং তার মামা আক্তারুজ্জামান এর রাখা মের্সাস জামান এন্টারপ্রাইজের একটি স্বাক্ষর করা ৬ লক্ষ টাকার চেক ছিনতাই করে নিয়ে যায়। 

পরবর্তীতে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে বিকাশ লিমিটেড এর ডিস্টিবিউটার মেসার্স আরিফ এন্টার প্রাইজের লোকজন এসে আমাদের বাড়ী থেকে আমাকেও তুলে নিয়ে যায়। পর রাত সাড়ে ১১ টার দিকে ১০০ টাকার একটি স্ট্যাম্পে আমার এবং আমার ভাইয়ের স্বাক্ষর রেখে আমাদেরকে ছেড়ে দেয়। 

গতকাল রেশমি আক্তার অভিযোগ করে আরো বলেন, গতকাল ১ অক্টোবর সাড়ে ১২ টায় বিকাশ ডিস্টিবিউটারের কর্মকর্তারা আবারো আমাদের বাসায় এসে আমাদের উপর জোর পুর্বক চাপ দিতে থাকে এবং আমাদের খারাপ ভাষায় কথা বলতে থাকে। এ সময় কয়েকজন সাংবাদিক বিষয়টি তদন্তে আসালে কর্মকর্তারা তাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়। 

এই ব্যাপারে মেমার্স আরিফ এন্টারপ্রাইজ এর বিকাশ ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিকাশ এজেন্ট মোঃ দিদার আমাদের বেশ কিছু টাকা লোড নিয়ে পালিয়ে গেছে। তার জন্য আমরা থানায় অভিযোগ করেছি। অভিযোগের এক পর্যায়ে তার কাছ থেকে রেশমি আক্তারকে তুলে নেয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করেন। 

এদিকে, গতকাল বিকাশের টাকা প্রতারণার বিষয়টি রেশমি আক্তারের কাছে কয়েকজন সাংবাদিক জানতে গেলে বি-আলম ট্রেডার্সের অডিট কর্মকর্তা সাংবাদিকদের সাথে রুঢ় আচরণ করেন।

তিনি তিনি সাংবাদিকদের পরিচয় জানতে চেয়ে বলেন, তারা কোন অধিকারে বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন। তিনি সাংবাদিকদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন।

এদিকে বিষয়টি বিকাশ রাঙামাটির ডিস্টিবিউটর মেসার্স আরিফ এন্টারপ্রাইজের মালিক বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন।

এই বিষয়ে এসআই ওসমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেন। 
 

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
রাঙ্গামাটি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর