আলোকিত রাঙামাটি
ব্রেকিং:
করোনায় দীর্ঘ ১৩৭ দিন বন্ধ থাকার পর খুলল রাঙামাটি পর্যটন কমপ্লেক্স
  • মঙ্গলবার   ০৪ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সর্বশেষ:
রাঙামাটির উপজেলা ভিত্তিক করোনা আপডেটঃ- রাঙামাটি সদর- আক্রান্ত ৪৩৫, কাপ্তাই- আক্রান্ত ১০২, কাউখালী- আক্রান্ত ৩০, বাঘাইছড়ি- আক্রান্ত ১৫, বরকল- আক্রান্ত ০৫, লংগদু- আক্রান্ত ১৫, রাজস্থলী- আক্রান্ত ১০, বিলাইছড়ি- আক্রান্ত ১৩, জুরাছড়ি- আক্রান্ত ২৩, নানিয়ারচর- আক্রান্ত ০৯। মোট আক্রান্ত- ৬৫৭, মোট সুস্থ- ৪৯৩, মোট মৃত্যু- ১০ জন।
৫৬১

তেঁতুল খেলে এসব জটিল রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষবে না!

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২০  

ছবি: তেঁতুল


তেঁতুলের নাম শুনলেই জিভে পানি চলে আসে। পাকা কিংবা কাঁচা অবস্থায় তেঁতুল খাওয়া যায়। অনেকে আছেন আঁচার বানিয়ে সারা বছর ঘরে রাখেন তেঁতুল। 

সব বয়সী নারীর কাছে সবচেয়ে লোভনীয় ফল তেঁতুল। তবে তেঁতুল যে শুধু স্বাদের দিক থেকে জনপ্রিয়, তা কিন্তু নয়। এর রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা।  

তেঁতুলে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি, ই এবং বি। সেই সঙ্গে রয়েছে ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং ডায়াটারি ফাইবার। শক্তাশালী সব অ্যান্টিঅক্সিডন্টও রয়েছে ফলটিতে। 

জানেন কি? টানা এক মাস নিয়মিত তেঁতুল খেলে আমাদের দেহে এমন সব পরিবর্তন আসে যা অকল্পনীয়। শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর কর্মক্ষমতা বাড়ায় তেঁতুল। এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান যা দেহের প্রদাহ কমিয়ে বিভিন্ন রোগ দূরে রাখে। দৃষ্টিশক্তি, ত্বক বা শারীরিক নানা সমস্যায় ফলটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

তাই রোগমুক্ত সুস্থ শরীরের জন্য নিয়মিত তেঁতুল খাওয়া যেতেই পারে। আর নিয়মিত তেঁতুল খেলে ছোট-বড় অনেক রোগ থেকেই মুক্তি মিলবে। তবে জেনে নিন এর অন্যান্য স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলো- 

> তেঁতুলের ডায়েটারি ফাইবার হজমে সহায়ক অ্যাসিডের ক্ষরণ নিশ্চিত করে। ফলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও তেঁতুলের বিলিয়াস সাবস্টেন্সও আমাদের হজম প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত এবং বদ-হজমের আশঙ্কা হ্রাস করে। 

> ক্রনিক কনস্টিপেশনের মতো সমস্যা দূর করতেও তেঁতুল দারুন কাজে আসে। এক কথায় পেটের ভিতরে ঘটে চলা ছোট-বড় প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে এই ফলটি। 

> রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরো শক্তিশালী হয়ে ওঠে তেঁতুলে। প্রচুর ভিটামিন সি থাকায় শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৃদ্ধি করে। এজন্য শুধু সংক্রমণ নয়, ছোট-বড় কোনো রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। 

> রক্তচাপ বেড়ে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে তেঁতুল খান অনেকেই। তেঁতুলের বিভিন্ন ভিটামিন এবং খনিজ ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। 

> তেঁতুল রক্তে উপস্থিত খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। যা আপনার হার্টের সমস্যা দূর করতে পারে।

> তেঁতুলে রয়েছে প্রচুর আয়রন। যা শরীরে লোহিত রক্ত কণিকার পরিমাণ বাড়ায়। ফলে দেহে রক্তস্বল্পতা দূর করে। নারীদের অ্যানিমিয়ার সমস্যা দূর করে তেঁতুল।

> তেঁতুলে রয়েছে বি কমপ্লেক্স। যা ব্রেইন ফাংশনকে উন্নত করে। এটি ভিটামিনটি দেহের স্নায়ুকোষের শক্তি বাড়ায়। এটি স্মৃতিশক্তি বাড়তেও সহায়তা করে।

> ওজন কমাতে সহায়তা করে তেঁতুল। এতে রয়েছে হাইড্রোক্সিসিট্রিক অ্যাসিড। যা শরীরের অতিরিক্ত ঝরাতে সহায়তা করে। তেঁতুলে থাকা ফাইবার খিদে কমিয়ে দেয়। ফলে অতিরিক্ত খাওয়া থেকে বিরত রাখে। 

> রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে তেঁতুল দুর্দান্ত কাজ করে। কার্বোহাইড্রেটের শোষণ মাত্রা কমিয়ে দিতে সক্ষম। নিয়মিত তেঁতুল খেলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর