• বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭

  • || ১১ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
স্বাস্থ্য বিধি মানা হচ্ছে না, সংক্রমণের আশঙ্কা রাজস্থলীতে রাঙামাটিতে শতভাগ মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতসহ সামাজিক দূরত্ব ও বাজার মনিটরিংয়ে মাঠে নেমেছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন নানিয়ারচরে অসহায় ও কর্মহীন পরিবারের মাঝে ত্রাণের চাল বিতরণ কাউখালীতে জনপ্রতিনিধিদের মাঝে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম বিতরণ রাঙামাটিতে এনজিও গুলোর ঋণ আদায় কার্যক্রম শুরু, বিপাকে ঋণ গ্রহীতরা
১৬৩

ভেন্টিলেটর উৎপাদন করছে মিনিস্টার

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ১০ মে ২০২০  


করোনাভাইরাস মহামারীর হাত থেকে মানুষের জীবন বাঁচাতে ভেন্টিলেটর বা অক্সিজেন যন্ত্র উৎপাদন শুরু করেছে দেশের অন্যতম শীর্ষ ইলেকট্রনিক্স পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মিনিস্টার হাই-টেক পার্ক ইলেকট্রনিক্স লিমিটেড। ইতিমধ্যে সব পরীক্ষা শেষ। অপেক্ষা শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের। মাস্ক ও জীবাণুমুক্তকরণ যন্ত্রও উৎপাদন শুরু করেছে মিনিস্টার। জানা গেছে, বিশ্বজুড়ে ভেন্টিলেটরের ব্যাপক সংকটে মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে ‘মিনিস্টার সেইফ লাইফ ভেন্টিলেটর-২০২০’ নামের মেড ইন বাংলাদেশ এ পণ্য উৎপাদন চলতি মাসেই শুরু করা হবে। উৎপাদিত পণ্যের প্রথম লটের ১০ শতাংশ ভেন্টিলেটর ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইকে নিয়ে সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে সরবরাহ করবে মিনিস্টার। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, ভেন্টিলেটর তৈরিতে সহযোগিতা করছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রণালয়, এফবিসিসিআই, কয়েকটি সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও বুয়েটের একদল প্রকৌশলী। সার্বিক দায়িত্ব পালন করছে মিনিস্টার হাই-টেক পার্ক ইলেকট্রনিক্স লিমিটেডের অভিজ্ঞ প্রকৌশলী, ডিজাইন, গবেষণা ও উন্নয়ন (আরঅ্যান্ডডি) বিভাগ।

এ প্রসঙ্গে মিনিস্টার হাই-টেক পার্ক ইলেকট্রনিক্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান এফবিসিসিআই পরিচালক এম এ রাজ্জাক খান রাজ গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘মিনিস্টার মানুষ ও মানবতার কল্যাণে ভেন্টিলেটর নিয়ে কাজ করছে; যা করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ মুহূর্তে আমাদের কোনো ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য নেই। এ ভেন্টিলেটর সরবরাহের মাধ্যমে মানুষের সেবা করতে চাই। আমরা প্রধানমন্ত্রীর হাতে এগুলো তুলে দিতে চাই কভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য হাসপাতালগুলোয় ব্যবহার করার জন্য।’

মিনিস্টার চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘আমাদের দক্ষ প্রকৌশলী, গবেষণা ও উন্নয়ন (আরঅ্যান্ডডি) টিমের অক্লান্ত পরিশ্রম, আইসিটি মন্ত্রণালয়, এফবিসিসিআই ও সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, বুয়েটের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারদের সহযোগিতার ফলে আমরা সাফল্য অর্জনের কাছাকাছি রয়েছি। আগামী সপ্তাহে আমরা ১০০ ইউনিট ভেন্টিলেটর উৎপাদন করব। এর পরের সপ্তাহ থেকে ৫০০ এবং এরপর পর্যায়ক্রমে ১ হাজার ইউনিট তৈরি করা হবে। পরে চাহিদা অনুযায়ী এটি আমরা উৎপাদন করব। এ ভেন্টিলেটরের মূল্য ৭৫ থেকে ৮৫ হাজার টাকা। ইতিমধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ১০০ ইউনিট ভেন্টিলেটরের চাহিদার কথা জানিয়েছে।’ মিনিস্টার হাই-টেক পার্ক ইলেকট্রনিক্স লিমিটেডের পরিচালক (কারখানা অপারেশন) প্রকৌশলী মনিরুল হাসান স্বপন বলেন, ‘কভিড-১৯ আক্রান্তদের চিকিৎসায় ভেন্টিলেটর খুবই জরুরি। মিনিস্টার সব সময় দেশ ও মানুষের জন্য কাজ করছে। তারই ধারাবাহিকতায় জীবন রক্ষাকারী ভেন্টিলেটর তৈরি করছে মিনিস্টার। আমার পণ্য, আমার দেশ, গড়ব বাংলাদেশ- এ স্লোগান লালন করে মিনিস্টার দেশ ও দেশের জন্য নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিশ্বের এই ক্রান্তিলগ্নে বিশ্বমানবতাকে বাঁচাতে মিনিস্টার কর্মীরা নিরলসভাবে কাজ করছেন।’

সূত্রঃ bd-pratidin.com

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর