ব্রেকিং:
দুর্গম সাজেকে হামে আক্রান্ত শিশুদের সেনাবাহিনীর চিকিৎসা
  • মঙ্গলবার   ৩১ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৭ ১৪২৬

  • || ০৬ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
ত্রাণ ও দূর্যোগ মন্ত্রনালয়ের অর্থায়ানে জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় বাঘাইছড়িতে ত্রাণ পেলো ১৩ শত পরিবার বাঘাইছড়ি সাজেকে আবারো বেড়েছে হামের প্রকোপ ১১ গ্রামে আক্রান্ত দেড় শতাধিক শিশু রাঙামাটিতে তৎপর জেলা প্রশাসন, ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ ও সেনাবাহিনী রাঙামাটিতে হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র পেল ৫৩ জন কাপ্তাইয়ে অসহায়দের পাশে একজন এন আই চৌধুরী রাঙামাটি পৌর এলাকার মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন পৌর মেয়র রাঙামাটি সদর উপজেলার বন্দুক ভাঙ্গার দুর্গম পাহাড়ী গ্রামের মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের পরিকল্পনায় করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে জনসতেনতামূলক জেলার ১৫টি স্থানে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন দূর্গম মগবানে কর্মহীন মানুষের মাঝে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ত্রাণ সহায়তা
১৯১৮

রাঙামাটি-চট্টগ্রাম রুটে পাহাড়িকা বাস চলাচল বন্ধ

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০  


রাঙামাটি প্রতিনিধিঃ- মোটর মালিক সমিতির নামে চাঁদাবাজি, যাত্রী হয়রানি বন্ধসহ উন্নত যাত্রীসেবা নিশ্চিতের দাবিতে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম রুটে যাত্রীবাহী পাহাড়িকা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয়রা।

মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে রাঙামাটি শহরের রিজার্ভ বাজারস্থ পাহাড়িকা পরিবহনের প্রধান কাউন্টারে তালা লাগিয়ে চট্টগ্রাম অভিমুখে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়।

রাঙামাটির আবাসিক হোটেল মালিক সমিতি, স্থানীয় পরিবহন মালিকগণ, সকল রাজনৈতিক দলসহ স্থানীয় সুশীল সমাজের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে এই আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন।

আন্দোলনকারীদের নেতৃত্বে থাকা ইমতিয়াজ সিদ্দিকী আসাদ জানিয়েছেন, অন্যতম পর্যটন জেলা রাঙামাটির পরিবহন সেক্টরে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে রেখেছে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি মোটর মালিক সমিতি নামক একটি অবৈধ সংগঠন। চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার সংসদ সদস্যের নাম ভাঙিয়ে বছরের পর বছর ধরে রাঙামাটিবাসীকে জিম্মি করে রাখা হয়েছে।

আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা ব্যবসায়ী সমিতির নেতা আনোয়ার মিয়া বানু জানিয়েছেন, রাউজান নির্ভর এই সংগঠনের একক আধিপত্য ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কারণে রাঙামাটিতে বিলাসবহুল বাস সার্ভিস চালু করতে পারছে না কোম্পানিগুলো। প্রতিটি বাস কোম্পানির কাছ থেকে ৪ লাখ টাকা করে চাঁদাবাজির ঘোষণা দিয়েছে চট্টগ্রাম মোটর মালিক সমিতির নেতারা।

এদিকে অবিলম্বে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে তথাকথিত মোটর মালিক সমিতির নামে চাঁদাবাজি বন্ধসহ উন্নত যাত্রীসেবা নিশ্চিতে প্রশাসন তথা সরকার যদি পদক্ষেপ না নেয় তাহলে লাগাতারভাবে হরতাল-অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচির ডাক দিবে বলেও আন্দোলনকারীরা ঘোষণা দিয়েছেন।

এদিকে রাঙামাটি থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখে চলাচলকারী পাহাড়িকা পরিবহনের বাস সার্ভিস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে এই রুটের যাত্রীরা।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
রাঙ্গামাটি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর