আলোকিত রাঙামাটি
  • বৃহস্পতিবার   ০১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১৬ ১৪২৭

  • || ১২ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে নতুন করে আরো ৩ জন করোনায় আক্রান্ত, মোট আক্রান্ত- ৯০৩, মোট সুস্থ- ৮৫০, মোট মৃত্যু- ১৩ জন। সারাদেশে ধর্ষণ-নির্যাতন বন্ধ এবং অপরাধীদের শাস্তির দাবীতে রাঙামাটিতে স্বেচ্ছাসেবীদের মানববন্ধন
১৬১৬

রিজার্ভ বাজারের প্রধান সড়ক সংস্কার নিয়ে আবারো অনিয়মের অভিযোগ

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০  


শেখ ইমতিয়াজ কামাল ইমনঃ- রাঙামাটি পৌর শহরের রিজার্ভ বাজারের প্রধান সড়ক সংস্কার নিয়ে আবারো অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সড়কের কাজ করতে এসে তোপের মুখে পড়েছে পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী ও ঠিকাদাররা। 

বুধবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকালে সড়কের কাজের নিম্নমান দেখে কাজ সঠিক ভাবে করতে প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাঙামাটি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও নিউ রাঙামাটি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। গতকাল সড়কের অনিয়ম ও কাজের গুনগত মান খারাপ দেখে সড়কটি সঠিক ভাবে মেরামত করতে প্রতিবাদ জানায় স্থানীয়রা। সংস্কার কাজে রাস্তাটি বিভিন্ন স্থানে সিলকোট করে সংস্কার করা হচ্ছে এবং বিভিন্ন স্থানে পটল কার্পেটিং এর মাধ্যমে যেনতেনো ভাবে করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে স্থানীয়রা। 

এ সময় রাঙামাটি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমানের কাছে সড়কের কাজের সিডিউল ও কাজের মান সম্পর্কে প্রশ্ন তোলেন রাঙামাটি জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর। এ সময় নিউ রাঙামাটি বাজার সমিতির সভাপতি আনোয়ার মিয়া বানু সহ স্থানীয় ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন। 

রাঙামাটি জেলা পরিষদ সদস্য ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর প্রকৌশলী ও ঠিকাদরদের কাছে প্রশ্ন তুলে বলেন, কেউ কী আপনাদের কাছে চাঁদা চেয়েছে, নাকী কাজের জন্য কেউ আপনাদেরকে বাঁধা দিয়েছে। কিছুই যদি না করে থাকে তাহলে কাজের মান খারাপ হচ্ছে কেন। কেউ যদি চাঁদা দাবী করে তাহলে আমাদেরকে বলেন আমরা তার প্রতিকার করছি। কিন্তু কাজের গুনগত মান ভালো হতে হবে। তা না হলে আমরা কাজ বন্ধ করে দিবো। 

স্থানীয়রা ঠিকাদারকে প্রশ্ন তুলে বলেন, কতো টাকা মেয়র ও প্রকৌশল শাখায় দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, তাদেরকে যদি ২০ শতাংশ দেয় তাহলে কিভাবে কাজ করবে। ঠিকাদার নিজস্ব লাভ করতে হবে অফিসকে ২০ শতাংশ দিয়ে কিভাবে কাজের গুনগত মান ঠিক থাকবে। তিনি অফিসকে কোন ধরনের পিসি ও অফিস খরচ না দেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়ে বলেন, আপানাদের লাভ একটু কম করে স্থানীয় দের স্বার্থে কজের গুনগত মান ভালো করুন। 

এ সময় রাঙামাটি পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আতিকুর রহমান বলেন, কাজের গুনগত মান ভালো হচ্ছে। পৌরসভার ফান্ডের টাকা নেই তার পরও আমরা অনেক কষ্ট করে রাস্তাটি ঠিক করে দিচ্ছি জনগণের কথা ভেবে। আসলে রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে খারাপ থাকায় আমরা ষ্টিমেট করেছি যেখানে যতটুকু প্রয়োজন সেই ভাবে। ঠিকাদারকে বলেছি কোন ধরনের কাজে অনিয়ম আমরা সহ্য করবো না। 

উল্লেখ্য যে, দীর্ঘ সাড়ে ৩ বছর আগে রাঙামাটি পৌরসভার বিদেশী দাতা সংস্থার অর্থায়নে রাস্তাটি সংস্কার করা হয়। কিন্তু রাস্তার গুনগত মান খারাপ হওয়ার কারণে রাস্তাটি ১ বছরেই ভেঙ্গে যায়। রাস্তাটি সংস্কারের সময় থেকে রাস্তাটি ভালোভাবে করার জন্য পৌর কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করলে পৌর কর্তৃপক্ষ স্থাণীয়দেরকে চাঁদাবাজ বলে আখ্যায়িত করে। কিন্তু রাস্তাটি ১ বছর পর যখন নষ্ট হয়ে যায় তখন তাদের মুখে আর কোন উত্তর থাকে না। এই অবস্থায় দীর্ঘ আরো ২ বছর ধরে রাস্তাটি সংস্কারের জন্য বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন হওয়ার পর গত ৯ সেপ্টেম্বর থেকে রাস্তাটি সংস্কার কাজ শুরু হয়। শুরু থেকে স্থানীয়রা রাস্তাটির মান ঠিক রাখার জন্য পৌরকর্তৃপক্ষ অনুরোধ জানিয়ে আসছে।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
রাঙ্গামাটি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর