ব্রেকিং:
স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ১লা জুন থেকে রাঙামাটির ৬ টি উপজেলায় লঞ্চ চলাচল শুরু
  • রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বাঘাইছড়িতে ১৫ প্রতিবন্ধী পেলো প্রধানমন্ত্রীর উপহার বাঘাইছড়ি প্রেস-ক্লাবের স্থায়ী ভবন নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন লংগদুতে ১০টি মাদ্রাসার ৪শত ছাত্রদের মাঝে `প্রধানমন্ত্রীর উপহার` শিশু খাদ্য বিতরণ ‘হাসপাতাল গুলোতে পর্যাপ্ত চিকিৎসা সরঞ্জাম নিশ্চিত করা হবে’ কাঁচামাল সংকটে একসপ্তাহ ধরে কেপিএমের উৎপাদন বন্ধ
৪৩৯

রেশন বাঁচিয়ে মানুষের ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছে সেনাবাহিনী

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ৫ মে ২০২০  


করোনা মহামারি মোকাবিলায়  সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। এ পরিস্থিতিতে জনগণকে সচেতন করতে পর্যটন নগরী কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম জেলার চারটি উপজেলায় বেসামরিক প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশন ‘সকলের সুস্থতাই আমাদের কাম্য’ স্লোগানকে সামনে রেখে সার্বিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ রবিবার জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কর্মহীন হতদরিদ্র মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছে রামু সেনানিবাসের সেনাসদস্যরা। নিজেদের রেশন বাঁচিয়ে চাল, ডাল, আটা, আলু, পেঁয়াজ, তেল, লবণসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বাড়ি বাড়ি গিয়ে অসহায় মানুষের হাতে পৌঁছে দেন।

এ সময় বিনা প্রয়োজনে কাউকে ঘর থেকে বের না হওয়ার অনুরোধ করেন সেনা সদস্যরা। পাশাপাশি তারা বেশি বেশি হাত ধোয়, মাস্ক ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করেন।

এছাড়া, সেনাবাহিনীর মেডিকেল টিম রামু উপজেলা ও পেকুয়া উপজেলায় অসহায় মানুষদের প্রাথমিক চিকিৎসাসহ স্যালাইন বিতরণের পাশাপাশি ছোটদের জন্য চিপস ও চকলেট বিতরণ করেন।

গত ৮ এপ্রিল থেকে পর্যটন নগরী কক্সবাজার লকডাউন ঘোষণার পর থেকে সেনাবাহিনীর কার্যক্রম আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি চেকপোস্ট স্থাপন করেছে সেনাবাহিনী। জেলা শহর ছাড়াও আশেপাশের উপজেলায় টহল কার্যক্রম ছিল চোখে পড়ার মতো। টহলরত সেনা সদস্যরা মানুষের সমাগম দেখলেই গাড়ি থামিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলে বিনা কারণে বের হওয়াদের দ্রুত এলাকা ত্যাগ করে ঘরে থাকার নির্দেশ দিচ্ছেন।

উখিয়া ও টেকনাফ এলাকার ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা ভাইরাস সচেতনতা বৃদ্ধিতে নিরলসভাবে কাজ করছে সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশনের সেনাসদস্যরা। সেনা ক্যাম্পের তত্ত্বাবধানে রোহিঙ্গা মাঝি ও স্বেচ্ছাসেবকদের সাথে বৈঠক অব্যাহত রয়েছে। বিভিন্ন এনজিও সংস্থাসমূহের মাধ্যমে বার্মিজ ও ইংরেজি ভাষায় সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণের পাশাপাশি ক্যাম্পসমূহে দিনব্যাপী বার্মিজ এবং ইংরেজি ভাষায় সচেতনতামূলক মাইকিং চলমান রয়েছে।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
সারাদেশ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর