আলোকিত রাঙামাটি
ব্রেকিং:
বাঘাইছড়িতে সেনাবাহিনীর ১২ বীর জোন সদরে ভয়াবহ আগুন, ১ ঘন্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট রাঙামাটি শহরের কাঁঠালতলী এলাকায় মসজিদ কলোনীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ৩০টি দোকান ও কাঁচা ঘর পুড়ে ছাই
  • রোববার   ০৭ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২৩ ১৪২৭

  • || ২২ রজব ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটি জেলায় করোনায় মোট আক্রান্ত- ১২৭১, মোট সুস্থ- ১২২৩, মোট মৃত্যু- ১৬ জন।

শনিবার ঘর পাচ্ছে ৬৬ হাজার ১৮৯ পরিবার

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ২২ জানুয়ারি ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত


আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় এক হাজার ১৬৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা ব্যয়ে জমিসহ ঘর পাচ্ছে ৬৬ হাজার ১৮৯টি পরিবার। ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল অসহায় জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসনের জন্য দেয়া হবে এসব ঘর।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এসব পরিবারের কাছে ঘর হস্তান্তর করবেন।

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউস।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া ও আশ্রয়ণ প্রকল্পের পরিচালক মাহবুব হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আহমেদ কায়কাউস বলেন, প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন মুজিববর্ষে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না। প্রতিটি পরিবারকে আলাদাভাবে ঘর করে দেয়ার কর্মসূচি নিয়েছেন। করোনার মধ্যে ছয়মাসেরও কম সময়ে এসব ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। এসব ঘর নির্মাণে ব্যবহৃত হচ্ছে দুই হাজার ৯৮ একর সরকারি খাস জমি। 

এসব বাড়িতে সুপেয় পানি ও বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব বাড়ির বাসিন্দাদের কর্মসংস্থানের জন্য আশপাশে বিভিন্ন কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। আমি মনে করি, মুজিববর্ষের অসাধারণ ঘটনা। সরকারি উদ্যোগে ছিন্নমূল মানুষকে পুনর্বাসন করার নজির পৃথিবীতে এ প্রথম।  

প্রধানমন্ত্রীর দর্শন হচ্ছে, কাউকে যদি ছাদ দেয়া হয় তার মাধ্যমে তার দারিদ্র্য বিমোচনের ভিত্তি স্থাপিত হয়। আত্মসম্মান প্রতিষ্ঠিত হওয়ার মাধ্যমে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়।

তিনি আরও বলেন, দেশব্যাপী নির্মিত এসব বাড়ির জন্য উপজেলা পর্যায়ে বরাদ্দ ও কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। সে কমিটি নিজেরা নির্মাণসামগ্রী কিনে বাড়িগুলো বানাচ্ছে। সাধারণভাবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও দরপত্রের মাধ্যমে কাজ করা হলেও এটি সরাসরি স্থানীয় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সংসদ সদস্য, মন্ত্রী ও সরকারি তরুণ কর্মকর্তাদের তত্ত্বাবধানে নির্মাণ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশে ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারের সংখ্যা তিন লাখের কিছু কম। জমি আছে ঘর নেই এমন পরিবার আছে ছয় লাখের কিছু কম। প্রায় নয় লাখ পরিবার আছে। প্রথম পর্যায়ে ৬৬ হাজার পরিবারকে ঘর দেওয়া হচ্ছে। পরবর্তী পর্যায়ে আগামী এক মাসে ঘর পাবে প্রায় এক লাখ পরিবার। এটি চলমান থাকলে আগামী দুই বছরের মধ্যে সবাইকে ঘর দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করতে পারবো বলে আশা করছি। ১০ লাখ মানুষ মাথার নিচে ছাদ, সুপেয় পানি ও বিদ্যুৎ পেলে কী পরিমাণ কল্পনাতীত মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে যাবে।  

জানা গেছে, তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে এ ঘরগুলো দেয়া হচ্ছে। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ৪১৯ কোটি ৬০ লাখ টাকায় তৈরি করা হয়েছে ২৪ হাজার ৫৩৮টি ঘর। দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনশীল ঘর নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ৬৫৯ কোটি ৮২ লাখ টাকায় ৩৮ হাজার ৫৮৬টি ঘর ও ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের আওতায় ৫২ কোটি ৪১ লাখ টাকায় তিন হাজার ৬৫টি ঘর তৈরি করা হয়েছে। প্রকল্পগুলোতে মোট ব্যয় হয়েছে এক হাজার ১৬৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি