• সোমবার   ০৬ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২২ ১৪২৬

  • || ১২ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে হোম কোয়ারেন্টাইনে ১৮৬ জনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়েছে ১৩৬ জন, বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৫০ জন কাপ্তাই নৌ-বাহিনী ঘরে ঘরে পৌঁছে দিল ত্রাণ সামগ্রী বাঘাইছড়িতে কাচালং নদীতে গোসল করতে নেমে এক পাহাড়ী মেয়ে নিখোঁজ কাপ্তাইয়ে ইউএনও এবং সেনাবাহিনীর গাড়ী দেখে পালিয়ে গেল দোকানীরা
২৩৭

হটলাইনে ফোন দিন, বাসায় পৌঁছাবে স্বাস্থ্যকর্মী: আইইডিসিআর

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ২৪ মার্চ ২০২০  

আইইডিসিআর’র লোগো


করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে হটলাইনে কল করে প্রয়োজনীয় সেবা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)।

এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। করোনা মোকাবিলায় সবার আগে প্রয়োজন সচেতনতা। আপনি নিজে সচেতন হন এবং অপরকে সচেতন হওয়ার কথা বলেন। নিয়মিত সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়া, কাশি শিষ্টাচার মেনে চলা, কারো সঙ্গে কোলাকুলি না করা, ভিড় এড়িয়ে চলা, অপ্রয়োজনে বিদেশ ভ্রমণ না করলে এ ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। 

তিনি আরো বলেন, কোনো ব্যক্তি যদি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন, তিনি সরকারি কোনো হাসপাতালে না গিয়ে আমাদের হটলাইনে ফোন করবেন। তাহলে আমাদের টিম আপনার বাসায় গিয়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করবে। সরাসরি কোনো হাসপাতালে চলে গেলে সংক্রমণের সম্ভাবনা বেশি হবে।

ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, আপনার যদি মনে হয়, আপনি কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত, তাহলে আপনার বাড়ির বাইরে বের হওয়ার প্রয়োজন নেই। আপনি আমাদের হট-লাইনে ১৭টি ফোন নাম্বার দেয়া আছে সেখানে যোগাযোগের চেষ্টা করুন। এছাড়াও ই-মেইলের ([email protected]) মাধ্যমেও আইইডিসিআরের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। এর পাশাপাশি একটি ফেসবুকে পেজও খোলা হয়েছে। সেখানে বার্তা দেয়া হলেও আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হবে। আপনার সেবা নিশ্চিতের জন্য আমাদের স্বাস্থ্যকর্মী আপনার বাসায় পৌঁছে যাবে। 

আইইডিসিআরের হট-লাইন গুলোতে প্রয়োজন ছাড়া কেউ ফোন দেবেন না জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আমাদের এই হট-লাইন গুলো শুধুমাত্র করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দেয়ার লক্ষ্যে খোলা হয়েছে। কিন্তু এরই মধ্যে লক্ষ্য করা যাচ্ছে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নয়। অপ্রয়োজনীয় ফোন অনেক বেশি আসছে। ফলে অনেকে হয়তো আমাদের লাইন টা ব্যস্ত পাচ্ছেন। তাই শুধুমাত্র এই রোগের উপসর্গ ব্যতীত অন্য কেউ অযথা হট-লাইনে কল করবেন না।  

অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আমাদের বেশ কয়েকটি হট লাইন রয়েছে। আইইডিসিআরের ১৭টি। কিন্তু এই নম্বরগুলোয় আইভিআর যুক্ত না থাকায় অনেকেরই যোগাযোগ করতে অসুবিধা হচ্ছিল। আইইডিসিআরের হট লাইন ছাড়াও করোনা বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কল সেন্টার ১৬২৬৩ ও ৩৩৩- এ যোগাযোগ করা যাবে।

আইইডিসিআর সূত্রে জানা গেছে, গতকাল ২৩মার্চ পর্যন্ত ১৬২৬৩(স্বাস্থ্য বাতায়ন) এই নম্বরে গত ২৪ ঘণ্টায় কল এসেছে ৩২৬৯৩ এবং সর্বমোট ৩১৫৬৩৬। ৩৩৩- এই নম্বর গত ২৪ ঘণ্টায় কল এসেছে ২৩৬৪ সর্বমোট ২০৬৫০।

এবং আইইডিসিআরে গত ২৪ ঘণ্টায় কল এসেছে ১৭১৬ এবং সর্বমোট ৫৪৮৮৩। মোট ফোন কলের সংখ্যা ২৩মার্চ হতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৭৬৭ সর্বমোট ৩৯১১৬৯।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর