• রাঙামাটি

  •  শনিবার, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২৩

জাতীয়

বিদেশি বিনিয়োগের বিশাল কর্মযজ্ঞ আড়াইহাজারে

নিউজ ডেস্কঃ-

 প্রকাশিত: ১৫:১২, ৫ ডিসেম্বর ২০২২

বিদেশি বিনিয়োগের বিশাল কর্মযজ্ঞ আড়াইহাজারে

ঢাকা থেকে ৩২ কিলোমিটার দূরে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বাংলাদেশ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের (বিএসইজেড) প্রকল্প এলাকা। ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কাছে ছনপাড়া এলাকায় বিএসইজেডের প্রধান ফটক। ঢাকা থেকে মোটরসাইকেলে যেতে লাগল এক ঘণ্টার কিছু বেশি সময়। গত শনিবার প্রকল্প এলাকায় গিয়ে রীতিমতো কর্মযজ্ঞ চলতে দেখা যায়। দেশি-বিদেশি শ্রমিকেরা কাজ করছেন পূর্ণোদ্যমে। মহাসড়কের সঙ্গে প্রকল্প এলাকার সংযোগ সড়ক, সীমানাপ্রাচীর তৈরির কাজ শেষ।

একাধিক কর্মকর্তা জানান, এরই মধ্যে চুক্তি হয়েছে তুরস্কভিত্তিক সিঙ্গার এবং জার্মানির কোম্পানি রুডলফের সঙ্গে। আরও কয়েকটি দেশের অন্তত ৪০টি কোম্পানি এরই মধ্যে বিনিয়োগ করতে আগ্রহ দেখিয়েছে। এসবের মধ্যে জাপানেরই ৩০টি। কাল মঙ্গলবার উদ্বোধনের দিনই জাপানের দুটি কোম্পানিসহ কয়েকটি বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হওয়ার কথা। এখানে প্রায় ১৫০ কোটি ডলার (১৫ হাজার কোটি ডলারের বেশি) বিনিয়োগ হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

জাপানের অংশীদারিতে এক হাজার একর জমির ওপর এই বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাল সকালে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করবেন। জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি এবং বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন।

জাপানের অংশীদারিতে প্রতিষ্ঠিত হতে যাওয়ায় বিএসইজেডটি জাপানি অর্থনৈতিক অঞ্চল নামে পরিচিতি পাচ্ছে।

অগ্রগতি ৮৫ শতাংশ
বিএসইজেডের প্রকল্প পরিচালক সালেহ আহমেদ আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘প্রকল্পের অগ্রগতি ৮৫ শতাংশ। বিনিয়োগকারীদের হস্তান্তর করার জন্য ১৬০ একর জায়গা এরই মধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। বিদেশি একটি কোম্পানিকে ৩৫ একর জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে তারা কারখানা তৈরির কাজ শুরু করেছে। আর প্রকল্প উদ্বোধনের সময় শতাধিক জাপানিসহ কয়েকটি দেশের বিনিয়োগকারীরা উপস্থিত থাকবেন। উদ্বোধনের দিনই কয়েকটি বিদেশি কোম্পানির বিনিয়োগবিষয়ক চুক্তি করার কথা। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কথা ভেবে একটু আগেভাগেই বিশেষ অর্থনৈতিক জোন উদ্বোধন করা হচ্ছে।’

প্রকল্প এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, উদ্বোধন সামনে রেখে কর্মতৎপরতা বেড়েছে কয়েক গুণ। জমি অধিগ্রহণের কাজ শেষ। কর্মকর্তারা জানান, সিঙ্গার ৭৯০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে।

বিএসইজেডে বেজার মালিকানা ২৪ শতাংশ, জাপানি কোম্পানি সুমিতোমোর ৭৬ শতাংশ এবং জাপান আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) অংশীদারি ১৫ শতাংশ।

৪২ বিদেশি কোম্পানি বিনিয়োগে আগ্রহী
বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন গতকাল রোববার আগারগাঁওয়ে নিজ কার্যালয়ে এক মতবিনিময় সভায় জানান, বিএসইজেড পুরোপুরি চালু হলে ১৫০ কোটি ডলার বিনিয়োগ হবে। এতে কর্মসংস্থান হবে এক লাখ মানুষের। বিনিয়োগে এরই মধ্যে চুক্তি সই হয়েছে সিঙ্গার ও জার্মানির রুডলফের সঙ্গে। আরও ৪০টি বিদেশি কোম্পানি বিনিয়োগের আগ্রহ দেখিয়েছে, সেগুলোর মধ্যে ৩০টি জাপানের।

ওনদা, নিক্কা চুক্তি করতে পারে কাল
ডেভেলপমেন্ট জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশের (ডিজেএফবি) সঙ্গে মতবিনিময় সভায় শেখ ইউসুফ হারুন জানান, উদ্বোধনের দিন জাপানের দুটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি সই হওয়ার কথা রয়েছে। তবে ওই দুটি কোম্পানির নাম প্রকাশে অপারগতা জানিয়েছেন তিনি।

অন্য একটি সূত্রে জানা যায়, জাপানের ওনদা করপোরেশন ও নিক্কা কেমিক্যালসের সঙ্গে ৬ ডিসেম্বর সরকারের চুক্তি হওয়ার কথা আছে। দুই প্রতিষ্ঠানই বিএসইজেডে ১০ একর করে জায়গা বরাদ্দ পাচ্ছে। ওনদা সেখানে গ্যাস মিটার তৈরির কারখানা করবে, আর নিক্কা কেমিক্যালস রাসায়নিক পণ্য উৎপাদন করবে।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএসইজেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারো কাউয়াচি, প্রকল্প পরিচালক সালেহ আহমেদ, বেজার নির্বাহী সদস্য ইরফান শরীফ, আবদুল আজীম চৌধুরী, ডিজেএফবির সভাপতি হামিদ উজ জামান প্রমুখ।

জাইকার উদ্যোগে হবে দক্ষতা উন্নয়ন কেন্দ্র
আগামী গ্রীষ্মে এখানে উৎপাদন শুরুর আশা করে বিএসইজেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারো কাউয়াচি জানান, দুই বিনিয়োগকারীর মধ্যে সিঙ্গার ৩৫ একর জায়গা পেয়েছে। কোম্পানিটি ৭৯ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। আর রুডলফ পেয়েছে ৫ একর জায়গা, বিনিয়োগ করবে ৭ মিলিয়ন ডলার।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বিএসইজেডসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক অঞ্চলে দক্ষ জনবল সরবরাহে জাইকার উদ্যোগে দক্ষতা উন্নয়ন কেন্দ্রও স্থাপন করা হবে।

উন্নয়নে জাইকার ২৫০০ কোটি, সুমিতোমোর ১০০০ কোটি টাকা
প্রকল্পে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে দুই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এক হাজার একর ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। ভূমি ও অবকাঠামো উন্নয়নে আড়াই হাজার কোটি টাকা অর্থায়ন করছে জাইকা। ঠিকাদারির কাজ পেয়েছে জাপানি টোয়া করপোরেশন। উন্নয়নকাজে এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে সুমিতোমো।

জানা যায়, পরিবেশবান্ধব ব্যবস্থাপনায় এখানে উৎপাদিত হবে ওষুধ, অটোমোবাইল, ইলেকট্রনিক সামগ্রীসহ অনেক মূল্যবান পণ্য।

বদলে যাচ্ছে আড়াইহাজার
রাজধানীর কাছে হলেও আড়াইহাজার উপজেলার অধিকাংশ জনপদ ছিল অনগ্রসর। পাঁচরুখি, ছনপাড়া, সিংহদি, পাঁচগাঁও, পাঁচবাড়িয়া ছিল প্রত্যন্ত গ্রাম। তবে বিএসইজেড প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ায় পাল্টাতে থাকে চেহারা। জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ায় প্রায় ১ হাজার ৮০০ ভূমিমালিক লাভবান হয়েছেন। দরিদ্র মানুষেরা শ্রমিক হিসেবে কাজ পেয়েছেন।

বিএসইজেডে ফটকের পাশে শীতের পিঠা বিক্রি করেন ছনপাড়ার আনোয়ার-জয়তুন দম্পতি। আনোয়ার জানান, আগে মাছের আড়তে কাজ করতেন। এখন প্রকল্পের শ্রমিকদের কাছে পিঠা বিক্রি করে বেশি আয় করেন।

প্রকল্পের কারণে মাহফুজা বেগমের বাড়ির একাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর জন্য তিনি ৭৫ লাখ টাকা পান। কেউ কেউ কোটি টাকাও পেয়েছেন। প্রকল্পে বালু ভরাট কাজের শ্রমিক রুহুল আমিন বলেন, ‘ছনপাড়ায় একের পর এক ভবন ওঠতাছে, শহরে পরিণত অইতাছে।’

বিদেশি বিনিয়োগে আস্থা বাড়বে
বিএসইজেড পুরোপুরি সচল হলে বিদেশি বিনিয়োগে আস্থার সংকট কাটবে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক সেলিম রায়হান। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘এই অর্থনৈতিক জোন যদি দ্রুত বাস্তবায়িত হয় এবং দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে পারে, তাহলে অবশ্যই আমাদের অর্থনীতিতে বড় ধরনের ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। এতে বৈদেশিক লেনদেনে ভারসাম্য আসবে। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে।’

মন্তব্য করুন: