• রাঙামাটি

  •  মঙ্গলবার, জুলাই ৫, ২০২২

পার্বত্য চট্টগ্রাম

ওমর ফারুক ত্রিপুরা হত্যাকারীদের গ্রেফতার না করায় ছাত্র পরিষদের বিবৃতি

রাঙামাটি (সদর) প্রতিনিধিঃ-

 প্রকাশিত: ১৭:৫৩, ১৮ জুন ২০২২

ওমর ফারুক ত্রিপুরা হত্যাকারীদের গ্রেফতার না করায় ছাত্র পরিষদের বিবৃতি

ফাইল ছবি


বান্দরবানের ইসলাম প্রচারক নও মুসলিম ওমর ফারুক ত্রিপুরা হত্যাকাণ্ডের আজ একবছর পার হতে চলছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত ওমর ফারুকের হত্যাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার না করায় পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ পিসিসিপি’র কেন্দ্রীয় কমিটি উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দেয়।

আজ শনিবার দুপুরে গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রামে পশ্চিমা আগ্রাসনের মিশনারীদের পরোক্ষ ইন্ধনে গত বছর আজকের এই দিনে বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার তুলাবন ছড়া গ্রামের নওমুসলিম ওমর ফারুক ত্রিপুরাকে এশারের নামাজের পর রাত ৯.০০ টায় নির্মমভাবে হত্যা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় সন্ত্রাসী সংগঠন জেএসএসের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

আজ হত্যাকাণ্ডের এক বছর অতিবাহিত হলেও হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত কাউকে এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার করতে পারেনি প্রশাসন, এবং কি তুমুল আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের শিকার ওমর ফারুক ত্রিপুরার পরিবার পায়নি সরকারি কোনো ধরনের সহায়তা। 

দেশের সংবিধান মোতাবেক স্বাধীনভাবে পার্বত্য চট্টগ্রামে বিভিন্ন ধর্মের ধর্মপ্রচারকগণ তাদের ধর্মের প্রচার ও প্রসার দীর্ঘ সময় ধরে চালিয়ে যাচ্ছেন, যার ফলে পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের অনেক বড় একটি অংশ ইতোমধ্যে তাদের পূর্ব পুরুষদের আচরিত বৌদ্ধ, হিন্দু ধর্ম বা প্রকৃতি পূজা ত্যাগ করে খ্রিস্টান ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়েছেন। তাতে কেউ বাধা প্রদান করেনি।অপরদিকে আমরা এটা দেখে অবাক হচ্ছি যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তির ধর্ম ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে কেউ মুসলিম হতে চাইলে তাকে বাধা দেওয়া হচ্ছে। ইসলামের প্রচার ও প্রসার করতে গেলে ধর্মপ্রচারকদের বিরুদ্ধে সুপরিকল্পিতভাবে একটি গোষ্ঠী প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে গুম-খুনের হুমকি পর্যন্ত দেওয়া হচ্ছে। ওমর ফারুক ত্রিপুরাকে যে এই প্রতিক্রিয়াশলীরাই হত্যা করেছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদ দেশের সংবিধান মোতাবেক সুস্পষ্টভাবে দাবি জানাচ্ছে, পাহাড়ে বসবাসরত সকল জাতিগোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের নাগরিক যাতে নিরাপদে তাদের স্ব স্ব ধর্মের বিধিবিধান পালন, প্রচার, প্রচারণা করতে পারে, তেমন একটি সুশৃঙ্খল, নিরাপদ ও সুন্দর পরিবেশ পার্বত্য চট্টগ্রামে নিশ্চিত করা এবং সেইসাথে উপজাতীয় সন্ত্রাসী কর্তৃক নওমুসলিম ওমর ফারুক ত্রিপুরা হত্যাকাণ্ডের ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে দায়ীদের চিহ্নিত করে অপরাধীদের যথাযথ শাস্তি দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।

মন্তব্য করুন: