আলোকিত রাঙামাটি
ব্রেকিং:
রাঙামাটিতে শেখ কামালের ৭২তম জন্মদিন উপলক্ষে পুষ্পমাল্য অর্পণ লংগদুতে চাঁদা না পেয়ে পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় ৩ কাঠুরিয়া আহত
  • বৃহস্পতিবার   ০৫ আগস্ট ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ২১ ১৪২৮

  • || ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাঙামাটিতে করোনায় নতুন আক্রান্ত আরো ৩৮ জন। মোট আক্রান্ত হয়েছেন- ৩০৮৮, মোট সুস্থ- ২২৩৩, মোট মৃত্যু ২৭ জন।

কঠিন যেসব রোগের মহৌষধ বৃষ্টির পানি

আলোকিত রাঙামাটি

প্রকাশিত: ২১ জুন ২০২১  

বৃষ্টির পানি। ছবি: সংগৃহীত


চলছে বর্ষাকাল। প্রকৃতি এখন যখন তখন বৃষ্টির জলে ভিজবে। বৃষ্টি সবার মনেই আনন্দ বয়ে আনে। তবে এই সময়ে বিভিন্ন রোগবালাইও হয়ে থাকে। পেটের রোগ, হাঁচি, কাশি, সর্দি, জ্বর ইত্যাদি সমস্যাগুলো বর্ষায় ছোট-বড় সবার মধ্যেই দেখা দেয়। তাইতো বর্ষার এই মৌসুমে সুস্থ থাকতে একটু বেশি সচেতন থাকা জরুরি।

তবে একটা তথ্য জানলে অবাক না হয়ে উপায় নেই!  আর তা হচ্ছে, আপনার জন্য এই বর্ষাই হয়ে উঠতে পারে রোগমুক্তির ঋতু! নিশ্চয়ই ভাবছেন কীভাবে? চলুন তবে জেনে নেয়া যাক গবেষণা কী বলছে-

বিজ্ঞানীদের একটা বড় অংশ বলছেন, বৃষ্টির পানি পৃথিবীর সবচেয়ে বিশুদ্ধ পানি।

অস্ট্রেলিয়ার একটি গবেষণা রিপোর্টের দাবি, বৃষ্টির পানি পান করা সবচেয়ে নিরাপদ। মাটি বা পাথরে থাকা মিনারেলস আর বর্জ্য, বৃষ্টির পানিতে থাকে না। সে কারণেই বৃষ্টির পানি পানে অনেক উপকারিতা দেখছেন বিজ্ঞানীরা। এক নজরে দেখে নেয়া যাক বৃষ্টির পানি কী কী রোগের মহৌষধ-

হজমশক্তি বাড়ায়

বৃষ্টির পানিতে থাকে অ্যালকালাইন পিএইচ যা অ্যাসিডিটি কমায়, হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

বৃষ্টির পানি চুল সুন্দর করে

কোনো মিনারেলস না থাকায়, বৃষ্টির পানি অত্যন্ত কোমল। এই পানিতে মাথা ধুতে পারলে শ্যাম্পু বা সাবানের চেয়েও ভালো কাজ দেয়।

পাকস্থলীর সমস্যা দূর করে

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ২ থেকে ৩ চামচ বৃষ্টির পানি খাওয়া ভালো। পাকস্থলীতে অ্যাসিডিটি বা আলসার থাকলে বৃষ্টির পানি ওষুধের কাজ করে।

রাসায়নিক মুক্ত পানি

ট্যাপের পানি জীবাণুমুক্ত করতে ক্লোরিন ব্যবহার করা হয়। আর ফ্লোরাইড আসে মাটির নিচ থেকে। বেশি মাত্রায় ক্লোরিন বা ফ্লোরাইড পেটে গেলে গ্যাসট্রাইটিস, মাথাব্যথার মতো সমস্যা বাড়ে। বৃষ্টির পানিতে ফ্লোরাইড বা ক্লোরিন, কোনোটিই থাকে না।

ক্যান্সার বিরোধী

বৃষ্টির পানিতে থাকা অ্যালকালাইন পিএইচ ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রুখে দেয়। ক্যান্সার রোগীদেরে ক্ষেত্রে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের কাজ করে বৃষ্টির পানি।

ত্বকের পক্ষে উপকারী

বৃষ্টিতে ভিজলেই অসুখ- এটা পুরনো ধারণা। বিজ্ঞানীরা বলছেন, সুন্দর সুস্থ ত্বক পেতে হলে, বৃষ্টির পানি অত্যন্ত উপযোগী। সুগন্ধি সাবানে থাকে অ্যাসিডিক পিএইচ যা ত্বককে রুক্ষ ও প্রাণহীন করে দেয়। বৃষ্টির পানিতে এসব কিছু নেই।

জ্বালা ও ব্যাকটেরিয়া নাশক

বৃষ্টির পানি কোষে জমে থাকা খারাপ ব্যাকটেরিয়াকে সাফ করে দেয়। ত্বকের জ্বালাও দূর হয়। তাই বিজ্ঞানীরা বলছেন, বৃষ্টি দেখে আর ঘরে বসে থাকা নয়। প্রাণ ভরে ভিজুন। বৃষ্টির পানি পান করুন।

সূত্র: বোল্ডস্কাই।

আলোকিত রাঙামাটি
আলোকিত রাঙামাটি