• রাঙামাটি

  •  শনিবার, জানুয়ারি ২৯, ২০২২

রাঙ্গামাটি

পর্যটক মুখর সাজেক ভ্যালিতে বেড়েছে নানা সুযোগ-সুবিধা

 প্রকাশিত: ১০:০৮, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

পর্যটক মুখর সাজেক ভ্যালিতে বেড়েছে নানা সুযোগ-সুবিধা

এক সময়ে চারদিকে ছিল ঘুটঘুটে অন্ধকার। এখন চারদিকে আলোর মিছিল। পর্যটকদের আনাগোনায় মুখরিত থাকে দিন-রাত। বলা হচ্ছে, পার্বত্য চট্টগ্রামের দার্জিলিং খ্যাত সাজেক ভ্যালির কথা। শুধু সাজেকই নয়, যোগাযোগ অবকাঠামে এবং বিদ্যুতায়নে গোটা পার্বত্য চট্টগ্রামের জীবনযাত্রাই পাল্টে যাচ্ছে।

সাজেকে পিচঢালা রাস্তা করা হয়েছে আরো আগেই। ধীরে ধীরে নানা সুযোগ-সুবিধায় বদলে গেছে এ পাহাড়ি জনপদ। ১০ বছর আগেও এক অজানা অচেনা পল্লির নাম ছিল ‘সাজেক’। দেখতে দেখতেই পার্বত্য চট্টগ্রামের সাজেক হয়ে উঠেছে দেশের আকর্ষণীয় পর্যটন নগরীতে। বর্তমানে প্রতিদিন শতশত পর্যটকে মুখরিত থাকে এই প্রত্যন্ত এলাকা। 

এক সময়ে সূর্য ডুবতেই অন্ধকারে ডুবে যেতো সাজেক। সেখানকার অজপাড়া গাঁও এখন আলোয় আলোকিত। সারাদেশের উন্নয়নের ধারায় বদলে যাওয়া সাজেকে বিদ্যুৎ এসেছে। মানুষের কল্পনাকেও মিথ্যা প্রমাণিত করে সাজেক আজ উন্নয়নের রোল মডেল। এক সময়ে কুপি ও সৌর বিদ্যুতের মিটমিট আলোয় পড়াশুনা করা শিক্ষার্থীরা এখন বিদ্যুতের ঝলমল আলোয় পড়াশুনা করতে পারছে। একইভাবে মিলছে তথ্য-প্রযুক্তি ও যান্ত্রিক জীবনের নানা সুযোগ-সুবিধা। বিদ্যুতের আলোতে পড়ালেখা করতে পেরে খুশি স্থানীয় বাসিন্দারাও। বিদ্যুৎ আসায় বেড়েছে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধাও।

সাজেক রুইলুই মৌজার হেডম্যান এল থাংগা লুসাই জানান, একটা সময় সাজেকে সড়ক, বিদ্যুৎ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তেমন সুযোগ-সুবিধা ছিল না। জীবনমানও অতটা উন্নত ছিল না। তবে বর্তমান সরকার আসার পর থেকে সড়ক, বিদ্যুৎ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ নানা সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি পেয়েছে। শিশুরা ঠিকঠাক মতো পড়ালেখা করতে পারছে।

সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেলসন চাকমা বলেন, সাজেকের অনেক জায়গায় সড়ক হয়েছে। অনেক স্থানে বিদ্যুৎ এসেছে। সাজেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ নানা ধর্মীয় প্রার্থনাঘর গড়ে উঠেছে। প্রত্যন্ত গ্রামেও পিচঢালা মসৃণ রাস্তা পৌঁছেছে। পথে পথে উন্নয়নের নানা চিত্র। কংক্রিটের বড় বড় সেতু। 

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের সহকারী প্রকৌশলী যত্ন মানিক চাকমা বলেন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে সাজেক এবং তার আশপাশের এলাকায় বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে। ধীরে ধীরে অনেক দুর্গম এলাকায় বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে।

আলোকিত রাঙামাটি

মন্তব্য করুন: