• ২৭ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১৪ ১৪২৮

  • || ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

রাঙ্গামাটি

শীতের সবজি চাষে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে জুরাছড়ির কৃষকরা

 প্রকাশিত: ১৭:১৫, ২৯ নভেম্বর ২০২১

শীতের সবজি চাষে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে জুরাছড়ির কৃষকরা

জুরাছড়ি (রাঙামাটি) প্রতিনিধিঃ- শীতকালীন সবজি আগাম বাজারে তুলতে পারলেই বেশি লাভ, আর একটু দেরি হলেই বিক্রি করতে হয় পানির দরে। এ কারণে রাঙামাটি জুরাছড়ি উপজেলার কৃষকরা সবজি চাষে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। কৃষকদের লক্ষ্য, ভরা মৌসুমে সবজি বাজার ধরা।

উপজেলার জুরাছড়ি ইউনিয়নে মিতিংগাছড়ি, লুলাংছড়ি, কুসুমছড়ি, সামিরা, ঘিলাতলী, বনযোগীছড়া ইউনিয়নের ডেবাছড়া, পানছড়ি, চকপতিঘাট, মৈদং ইউনিয়নের শীলছড়ি, বারাবান্যা, জামের ছড়ি, কাঠাল তলী, ফকিরাছড়ি, দুমদুম্যা ইউনিয়নে বরকলক, ডানে তেছড়ি, বস্তিপাড়া সবজির ক্ষেত ঘুরে দেখা যায়, চাষিরা শীতকালীন সবজির চারা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে। কেউ কেউ সেই চারা লাগাচ্ছে ক্ষেতে আবার কেউ ক্ষেত আগাছামুক্ত করছে নিড়ানি দিয়ে। জুরাছড়ি ইউনিয়নের মিতিংগাছড়ি, সামিরা ও ঘিলাতলীতে শীতে সবজি ক্ষেত থেকে তুলছে কৃষকরা। তারা আগাম বাজারে আনছে রকমারি শীতের সবজি। বাজারে দাম বেশ চওরা।

স্থানীয় বাজারে দেখা যায়, বেগুন, মুলা, সিম, তিত করলা, লাউ, লাল শাক, মিষ্টি কুমরা, ক্ষিরা বাজারে বিক্রি করছে চাষীরা। অনেকে পাইকারি কিনে রাঙামাটি শহরে নিয়ে যেতে দেখা যায়।

মিতিংগাছড়ি চাষী জুলেখা চাকমা বলেন, গেল বছর মহমারী করোনায় সবজিতে লাভের মূখ দেখা যায়নি। এবার শীতের আগাম সবজি বাজারে তুলতে পেরে ভাল দাম পাওয়া যাচ্ছে।

ঘিলাতলী, শীলছড়ির চাষী দীপম, রিটেন, সমিরন চাকমা বলেন, কৃষি বিভাগের সার্বিক সহযোগীতায় এ মৌসুমে সবজি ক্ষেতে রোগ বালাই নেই বললে চলে। দু-একদিনের মধ্যে বাজারে সবজি তুলতে পারবো।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কর্মকর্তা কৌশিক চাকমা, প্রকৌশলী মোঃ মতিউর রহমান বলেন, দাম একটু বেশি হলেও ফরমালিন মুক্ত ও তরতাজা সবজি পাচ্ছি। এমন সবজি পেয়ে বেশ খুশি তারা।

অনেক কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার এলেই রাঙামাটি শহরে নিজেদের পরিবার পরিজনদের জন্য স্থানীয় শাক সবজি কিনে নেয়ে যায় তারা। তাদের অভিমত, তরতাজা সবজি পেয়ে পরিবারের সদস্যরা অনেক খুশি হন।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ৩০ হেক্টর জমিতে শীতের সবিজ চাষাবাদ হয়েছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ মাহফুজ আহমেদ সরকার বলেন, চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় কিছু কিছু জায়গায় আগাম জাতের সবজি ভালো উৎপাদন হচ্ছে। করোনাকালীন সময়ে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে চাষীরা বেশি পরিমানের শাক সবজির চাষ করেছে। আগাম জাতের সবজি বাজারে উঠতে শুরু করেছে। ভালো দাম পেয়ে লাভবান হচ্ছেন চাষীরা।

তিনি আরো জানান, কৃষকদের চাষাবাদে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের সার্বক্ষণিক সহযোগিতার পাশাপাশি রাজস্ব খাতে ভুট্টা, সরিষা, বাদাম প্রদর্শনী প্রদান করা হয়েছে। 

আলোকিত রাঙামাটি

মন্তব্য করুন: