• রাঙামাটি

  •  শনিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২২

রাঙ্গামাটি

বিলাইছড়ির দুর্গম ফারুয়ায় সকল দাপ্তরিক কার্যক্রম নিশ্চিত করতে ব‍্যতিক্রমী উদ‍্যোগ

কাপ্তাই প্রতিনিধিঃ-

 প্রকাশিত: ১২:২৭, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

বিলাইছড়ির দুর্গম ফারুয়ায় সকল দাপ্তরিক কার্যক্রম নিশ্চিত করতে ব‍্যতিক্রমী উদ‍্যোগ

রাঙামাটি জেলাধীন বিলাইছড়ি উপজেলার দুর্গম ফারুয়া ইউনিয়ন উপজেলা সদর থেকে নৌপথে ৩ ঘন্টা পাড়ি দিয়ে পৌঁছাতে হয়। আবার শুষ্ক মৌসুমে পানি না থাকলে প্রায় ৪ ঘন্টার বেশি সময় লাগে ওই ইউনিয়নে যেতে। সড়ক যোগাযোগ নেই বললেই চলে, উপজেলা সদর হতে যেটুকু পথ আছে, তার অবস্থা খুবই নাজুক। ফলে নৌ পথই একমাত্র ভরসা। ফলে অনেক ক্ষেত্রে ওই ইউনিয়নের লোকজন সরকারি দাপ্তরিক সেবা থেকে বঞ্চিত হয়। তাই ইউনিয়ন পর্যায়ে বঞ্চিত এলাকায় উপজেলার সকল কার্যক্রম নিশ্চিত করতে বিলাইছড়ি উপজেলা প্রশাসন এক ব‍্যতিক্রমী উদ‍্যোগ গ্রহণ করেছে।

গত বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরোত্তম তঞ্চঙ্গ্যা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে দুর্গম ৩নং ফারুয়া ইউনিয়নে সরকারি বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করা হয়।

এ সময় উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উৎপলা চাকমা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ রশ্মি চাকমাসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

পরিদর্শন টিম ফারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ পরিদর্শন, উপজেলা স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা দপ্তরের অধীন বাস্তবায়ধীন বিভিন্ন প্রকল্পসমূহ পরিদর্শন করেন। সেসাথে দুর্গম ফারুয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন স্কুল সমূহের শ্রেণী কার্যক্রমও পরিদর্শন করা হয়।

বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরোত্তম তঞ্চঙ্গা জানান, কৃষি, স্বাস্থ্য, অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ সরকারি বিভিন্ন সেবামূলক কার্যক্রম কিভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে এবং এই কার্যক্রমগুলোকে আরো গতিশীল করার লক্ষ‍্যে আমাদের দুর্গম ফারুয়া ইউনিয়ন পরিদর্শন।

ইউএনও মোঃ মিজানুর রহমান জানান, বিলাইছড়ির দুর্গম ফারুয়া ইউনিয়নে উপজেলার সকল দপ্তরের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত উপজেলা টিম ফারুয়া ইউনিয়নে অফিসিয়াল ক্যাম্পেইন ও পরিদর্শন কার্যক্রম পরিচালনা করেন।



যেমন- উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে ফারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ, ফারুয়া উচ্চ বিদ্যালয়, বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার নেতৃত্বে একটি মেডিকেল ক্যাম্প পরিচালিত করাসহ বিনামূল্যে ঔষধ বিতরণ করা হয়। উপজেলা কৃষি অফিস কৃষক সমাবেশ করে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বিভিন্ন স্কুল পরিদর্শন ও অভিভাবক সমাবেশ করে। ইন্সট্রাক্টর, ইউআরসি তার পরিদর্শন ও একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা করে। উপজেলা প্রকৌশলী ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করেন। বিলাইছড়ি থানা বিট পুলিশিং ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে। এভাবে সকল দপ্তর প্রধানগণ ইউনিয়ন লেভেলে তার দপ্তরের সাথে সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম পরিচালনা করে।


অতঃপর উপজেলার সকল কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এলাকার মানুষের সাথে গণশুনানির মাধ্যমে করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। সবশেষে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা ও বরাদ্দের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল পর্যায়ের কর্মীদের সমন্বয়ে তাদের উদ্বুদ্ধ করণার্থে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সকল কর্মকর্তাদের একসাথে দুর্গম ইউনিয়নটিতে সেবামূলক কাজে পেয়ে ফারুয়াবাসী অত্যন্ত খুশি হয়।  

মন্তব্য করুন: